Notes

প্রশ্নোত্তরে ইতিহাস

প্রশ্নোত্তরে ইতিহাস – সেট ৩১
৩০৬. ইসলাম শাহের মৃত্যুর পরে দিল্লির সিংহাসনে বসেন তাঁর পুত্র মহম্মদ আদিল শাহ
৩০৭. আকবর জন্মগ্রহণ করেন ১৫৪২ খ্রিস্টাব্দে, অমরকোটের জঙ্গলে
৩০৮. আকবরের প্রকৃত নাম জালালউদ্দীন মহম্মদ আকবর
৩০৯. আকবরের মাতার নাম হামিদা বানু বেগম
৩১০. আকবর কথাটির অর্থ মহানতম ( The Greatest )
৩১১. আকবর ছিলেন অশিক্ষিত
৩১২. আকবর মুঘল সাম্রাজ্যের সিংহাসনে বসেন ১৫৫৬ খ্রিস্টাব্দে মাত্র ১৪ বছর বয়সে, অভিভাবক বৈরাম খাঁর তত্ত্বাবধানে
৩১৩. পানিপথের দ্বিতীয় যুদ্ধ হয় ১৫৫৬ সালে, মুঘল সেনাবাহিনীর সাথে আফগানদের
৩১৪. পানিপথের দ্বিতীয় যুদ্ধে মুঘলদের সেনাবাহিনীর নেতৃত্বে ছিলেন বৈরাম খাঁ
৩১৫. পানিপথের দ্বিতীয় যুদ্ধে আফগানদের সেনাবাহিনীর নেতৃত্বে ছিলেন  মহম্মদ আদিল শাহের হিন্দু সেনাপতি হিমু

প্রশ্নোত্তরে ইতিহাস – সেট ৩২
৩১৬. রাজপুতদের মধ্যে আকবরের সখ্যতা মানেননি মেবারের মহারানা প্রতাপ
৩১৭. ফতেপুর সিক্রি গঠন করেন আকবর, আগ্রা থেকে রাজধানীও ফতেপুর সিক্রিতে স্থানান্তর করেন
৩১৮. ফতেপুর সিক্রিতে “বুলন্দ দরজা” তৈরী করেন আকবর, গুজরাট জয়ের (১৫৭২ খ্রিস্টাব্দে ) স্মৃতিতে
৩১৯. হলদিঘাটের যুদ্ধ হয় ১৫৭৬ খ্রিস্টাব্দে, মুঘলদের কাছে মেবারের মহারানা প্রতাপ পরাজিত হন
৩২০. হলদিঘাটের যুদ্ধে মুঘল সেনাবাহিনীর নেতৃত্বে ছিলেন আকবরের রাজপুত সেনাপতি মান সিংহ
৩২১. আকবর কাশ্মীর ও সিন্ধুপ্রদেশ জয় করেন যথাক্রমে ১৫৮৬ ও ১৫৯৩ খ্রিস্টাব্দে
৩২২. আকবরের সময়ে মুঘল সাম্রাজ্য দক্ষিণে বিস্তৃত ছিল গোদাবরী নদীর অববাহিকা পর্যন্ত
৩২৩. আকবর হিন্দু প্রজাদের তীর্থকর রদ করেন ১৫৬৩ খ্রিস্টাব্দে
৩২৪. আকবর অমুসলিম প্রজাদের প্রদেয় জিজিয়া কর রদ করেন ১৫৬৪ খ্রিস্টাব্দে
৩২৫. চতুর্থ শিখগুরু রামদাসকে স্বর্ণমন্দির নির্মাণের জন্য জমি দান করেছিলেন আকবর

প্রশ্নোত্তরে ইতিহাস – সেট ৩৩
৩২৬. আকবর ইবাদতখানা ( ধর্মীয় সভাঘর ) নির্মাণ করেন ১৫৭৫ খ্রিস্টাব্দে
৩২৭. আকবর যে একেশ্বরবাদী ধর্মমত প্রবর্তন করেন দীন-ই-ইলাহী ( ঈশ্বরের ধর্ম ), ১৫৮২ খ্রিস্টাব্দে
৩২৮. আকবরের সভাসদদের মধ্যে প্রথম দীন-ই-ইলাহী গ্রহণ করেছিলেন বীরবল
৩২৯. ভারতে “মনসবদারী প্রথা” প্রবর্তন করেন আকবর
৩৩০. “মনসবদারী প্রথা”-এর ধারণা গ্রহণ করা হয়েছিল মঙ্গোলিয়া থেকে
৩৩১. আকবরের অর্থমন্ত্রীর নাম ছিল টোডরমল
৩৩২. দহশালা ব্যবস্থা বা দশশালা ব্যবস্থা প্রবর্তন করেন আকবর
৩৩৩. জমির উৎপাদনের নিরিখে ভূমিরাজস্ব নির্ধারণের উদ্দেশ্যে আকবর প্রবর্তন করেন জাবতি প্রথা
৩৩৪. আকবরের প্রশাসনে সবথেকে গুরুত্বপুর্ণ পদ ছিল  দিওয়ান বা ওয়াজির ( আবুল ফজল এই পদে ছিলেন )
৩৩৫. আকবরের প্রশাসনে দ্বিতীয় গুরুত্বপুর্ণ পদ ছিল মীর বক্সী বা রাজস্বমন্ত্রী ( টোডরমল এই পদে ছিলেন )

প্রশ্নোত্তরে ইতিহাস – সেট ৩৪
৩৩৬. আকবরের প্রশাসনে তৃতীয় গুরুত্বপুর্ণ পদ ছিল মীর সামান
৩৩৭. আকবরের প্রশাসনে চতুর্থ গুরুত্বপুর্ণ পদ ছিল কাজী ( প্রধান মন্ত্রী )
৩৩৮. ১৫৮০ সালে আকবর তার সাম্রাজ্যকে ১২টি সুবাই ( মতান্তরে ৫ টি সুবাই ) বিভক্ত করেন
৩৩৯. আকবর তৈরী করেন হুমায়ূনের সমাধি , আগ্রা দুর্গ, ফতেপুর সিক্রি, বুলান্দ দরওয়াজা, এলাহাবাদ কোর্ট, জাহাঙ্গীর মহল, হারুন মিনার প্রভৃতি
৩৪০. আকবরের রাজসভার সংগীত শিল্পী ছিলেন তানসেন ও রাজবাহাদুর
৩৪১. “আকবর-নামা” ও “আইন-ই-আকবরী” রচনা করেন আবুল ফজল
৩৪২. “নল-দময়ন্তী” উপন্যাসটি ফার্সি ভাষায় অনুবাদ করেন আবুল ফজলের ভাই ফৈজী
৩৪৩. আকবরের রাজসভার নবরত্নরা হলেন ফৈজি, আবুল ফজল, তানসেন, বীরবল, টোডরমল, মান সিংহ, আব্দুল রহিম, মোল্লা দো পিয়াজা, ফকির আজিয়াও দিন
৩৪৪. সংগীতজ্ঞ তানসেনের আসল নাম রামতনু পান্ডে
৩৪৫. রাজা বীরবলের প্রকৃত নাম মহেশ দাস

প্রশ্নোত্তরে ইতিহাস – সেট ৩৫
৩৪৬. “বাবরনামা” তুর্কিতে অনুবাদ করেন আব্দুল রহিম খান-ই-খানান ( বৈরাম খাঁর পুত্র )
৩৪৭. মেঘ মালহার ও দীপক রাগ গেয়ে যথাক্রমে বৃষ্টি ও আগুন আনতে পারতেন তানসেন
৩৪৮. বীরবল মারা যান ইউসুফজাই উপজাতিদের বিদ্রোহ দমন করতে গিয়ে
৩৪৯. কার মৃত্যুতে দুখী আকবর ২ দিন খাবার খাননি ও সুরা পান করেননি ?  বীরবল
৩৫০. ১৫৮৫ খ্রিস্টাব্দে আকবরের রাজসভায় এসেছিলেন ব্রিটিশ পর্যটক রালফ ফিচ
৩৫১. আকবর মারা যান ১৬০৫ খ্রিস্টাব্দে, আন্ত্রিক রোগে
৩৫২. আকবরের মৃতদেহ সমাধিস্থ করা হয় সেকেন্দ্রাতে ( আগ্রা থেকে ৩ মাইল দূরে )
৩৫৩. জাহাঙ্গীরের প্রকৃত নাম সেলিম
৩৫৪. জাহাঙ্গীরের পুরো নাম নুরউদ্দিন মহম্মদ জাহাঙ্গীর বাদশাহ গাজী
৩৫৫. জাহাঙ্গীর কথাটির অর্থ পৃথিবীর ধারণকারী ( The holder of the Earth )

প্রশ্নোত্তরে ইতিহাস – সেট ৩৬
৩৫৬. জাহাঙ্গীরের পিতা আকবর
৩৫৭. জাহাঙ্গীরের মাতা  মরিয়ম ( পূর্বনাম – হীরা কুঁয়ারি, মান সিংহের ভগ্নি )
৩৫৮. জাহাঙ্গীরের পত্নীর নাম নুরজাহান
৩৫৯. নুরজাহানের আসল নাম মেহেরুন্নিসা
৩৬০. নুরজাহান শব্দের অর্থ জগতের আলো ( Light of the World )
৩৬১. একমাত্র মুঘল মহিলা যার প্রতিকৃতি মুদ্রায় পাওয়া যায় নুরজাহান
৩৬২. নুরজাহানের প্রথম পতির নাম শের আফগান
৩৬৩. জাহাঙ্গীরের বিদ্রোহী পুত্র খসরুকে কোন শিখগুরু সাহায্য করেছিল ? গুরু অর্জুন দেব
৩৬৪. জাহাঙ্গীর কোন শিখ গুরুকে হত্যা করেন ? পঞ্চম শিখ গুরু অর্জুন দেবকে
৩৬৫. ক্যাপ্টেন হকিন্স ভারতে আসেন ১৬০৯ খ্রিস্টাব্দে, জাহাঙ্গীরের রাজসভায়



প্রশ্নোত্তরে ইতিহাস – সেট ৩৭
৩৬৬. স্যার টমাস রো ভারতে আসেন ১৬১৫ খ্রিস্টাব্দে, জাহাঙ্গীরের রাজসভায়
৩৬৭. জাহাঙ্গীরের রাজসভার এক বিখ্যাত চিত্রকর মনসুর
৩৬৮. ভারতে তামাক চাষের প্রচলন হয় জাহাঙ্গীরের আমল থেকে
৩৬৯. ভারতীয়রা কাদের কাছ থেকে তামাক চাষ শিখেছিল ? পর্তুগিজ
৩৭০. বারো কানুন নামক ১২টি আইন জারি করেছিলেন জাহাঙ্গীর
৩৭১. ১৬১৭ খ্রিস্টাব্দে মালিক অম্বরকে পরাজিত করে আহম্মদনগর দুর্গ দখল করেন জাহাঙ্গীর পুত্র খুররম
৩৭২. মালিক অম্বরকে পরাজিত করায় খুশি হয়ে জাহাঙ্গীর খুররমকে শাহজাহান উপাধি দেন
৩৭৩. ইতালিও পর্যটক যিনি জাহাঙ্গীরের রাজসভায় এসেছিলেন পিয়েত্রা ভাল্লে
৩৭৪. লাহোরের মতি মসজিদ নির্মাণ করেন জাহাঙ্গীর
৩৭৫. ইতমাদুল্লার মার্বেল নির্মিত সমাধি সৌধ নির্মাণ করেন নুরজাহান
৩৭৬. জাহাঙ্গীর মারা যান ১৬২৭ খ্রিস্টাব্দে
৩৭৭. শাহজাহান সিংহাসনে বসেন ১৬২৮ খ্রিস্টাব্দে
৩৭৮. পর্তুগিজ জলদস্যুদের দমন করার জন্য শাহজাহান নিয়োগ করেন কর্নেল স্লীম্যানকে

প্রশ্নোত্তরে ইতিহাস – সেট ৩৮
৩৭৯. শাহজাহানের কিছু উল্লেখযোগ্য স্থাপত্য  তাজমহল, মতি মসজিদ, জামা মসজিদ, লালকেল্লা, শালিমার বাগান, লাহোর-ই-ফৌজ, দেওয়ান-ই-খাস, খাসমহল, শিশমহল, মুসম্মান বুরজ
৩৮০. তাজমহল বানাতে  ২০০০০ শ্রমিক এবং ২২ বছর সময় লেগেছিল
৩৮১. তাজমহলের শিল্পীদের মধ্যে অন্যতম ওস্তাদ ঈসা ও বাঙালি কারুশিল্পী বলদেব দাস গুলোতরামের
৩৮২. ময়ূর সিংহাসনের শিল্পী ছিলেন বেবাদল খাঁ ( ৪ বছর সময় লেগেছিল )
৩৮৩. শাহজাহানের উষনিষে শোভা পেত কোহিনুর হীরে
৩৮৪. পাদশাহনামা রচনা করেছিলেন আব্দুল হামিদ লাহোরী
৩৮৫. মুন্তাখাব-উল-লুবাব রচনা করেছিলেন কাফি খাঁ
৩৮৬. মুঘল রাজত্বের সুবর্ণযুগ বলা হয় শাহজাহানের রাজত্বকালকে
৩৮৭. শাহজাহানের ৪ পুত্র ছিলেন দারা, সুজা, ঔরঙ্গজেব এবং মুরাদ
৩৮৮. শাহজাহান তাঁর শেষ জীবনে বন্দি ছিলেন আগ্রা দুর্গে
৩৮৯. শাহজাহান মারা যান ১৬৬৬ খ্রিস্টাব্দে
৩৯০. ঔরঙ্গজেব সিংহাসনে আরোহন করেন ১৬৫৮ খ্রিস্টাব্দে ( তার অন্য তিন ভাইকে হত্যা করে )

প্রশ্নোত্তরে ইতিহাস – সেট ৩৯
৩৯১. ১৬৫৮  খ্রিস্টাব্দে ঔরঙ্গজেব ধর্মট ও সমুদ্রগড়ের যুদ্ধে দারার মুঘল সেনাবাহিনীকে পরাজিত করেন
৩৯২. ঔরঙ্গজেব সিংহাসনে বসেন ১৬৫৮ খ্রিস্টাব্দে, “আলমগীর বাদশাহ গাজী” উপাধি ধারণ করে
৩৯৩. মুঘল সাম্রাজ্য সর্বাধিক বিস্তার লাভ করেছিল ঔরঙ্গজেবের সময়ে
৩৯৪. ঔরঙ্গজেবের পৃষ্ঠপোষকতায় রচিত হয় মুসলিমদের সর্ববৃহৎ আইন সংকলন “ফতোয়া-ই-আলমগীরী”
৩৯৫. গোঁড়া মুসলিমদের নিকট ঔরঙ্গজেব পরিচিত ছিলেন “জিন্দা পীর” নামে
৩৯৬. ১৬৭৫ খ্রিস্টাব্দে ঔরঙ্গজেব হত্যা করেন নবম শিখগুরু তেগবাহাদুরকে
৩৯৭. সতীদাহ নিষিদ্ধকরণের আদেশ জারি করেছিলেন ঔরঙ্গজেব ( ১৬৬৩ খ্রিস্টাব্দে )
৩৯৮. ইসলামবিরোধী আখ্যা দিয়ে ঔরঙ্গজেব তাঁর রাজসভায় বন্ধ করেন  নওরোজ ও সংগীতানুষ্ঠান ( ১৬৬৯ খ্রিস্টাব্দে )
৩৯৯. ঔরঙ্গজেব জিজিয়া করে পুনঃপ্রবর্তন করেন ১৬৭৯ খ্রিস্টাব্দে
৪০০. ঔরঙ্গজেব বিজাপুর দখল করেন ১৬৮৬ খ্রিস্টাব্দে

প্রশ্নোত্তরে ইতিহাস – সেট ৪০
৪০১. ঔরঙ্গজেব গোলকুন্ডা দখল করেন ১৬৮৭ খ্রিস্টাব্দে
৪০২. লালকেল্লার মতি মসজিদ ও লাহোরের বাদশাহী মসজিদ নির্মাণ করেন ঔরঙ্গজেব
৪০৩. ঔরঙ্গজেব মারা যান ১৭০৭ খ্রিস্টাব্দে ( ৫০ বছর রাজত্ব করার পর )
৪০৪. ঔরঙ্গজেবের সমাধি রয়েছে  ঔরঙ্গাবাদে ( দৌলতাবাদ )
৪০৫. শিবাজী জন্মগ্রহণ করেন ১৬২৭ খ্রিস্টাব্দে পুনের শিবনেরি দুর্গে
৪০৬. শিবাজীর পিতা হলেন বিজাপুর রাজ্যের অধীন পুনার জায়গীরদার
৪০৭. শিবাজীর মাতা হলেন জিজাবাই
৪০৮. শিবাজীর অভিভাবক ছিলেন দাদাজী কোন্ডদেব
৪০৯. শিবাজীর ধর্মীয় গুরু ছিলেন গুরু রামদাস ও তুকারাম
৪১০. শিবাজী বাঘনখ দ্বারা হত্যা করেছিলেন আফজল খাঁকে

Previous page 1 2 3 4 5 6Next page
Tags

Related Articles

2 Comments

Back to top button
Close