For Daily General Knowledge Quizzes and Notes, join our Telegram Group and Facebook page .


General Knowledge Notes in BengaliGeography Notes

পশ্চিমবঙ্গের সেতু সমূহ তালিকা । List Of Famous Bridges in West Bengal PDF

List Of Famous Bridges in West Bengal

পশ্চিমবঙ্গের সেতু সমূহ তালিকা

প্রিয় পাঠকেরা, আজকে আমরা আলোচনা করবো পশ্চিমবঙ্গের বিখ্যাত সেতু সমূহ তালিকা নিয়ে। কোন সেতু কোন নদীর ওপরে কোন জেলায় অবস্থিত তার একটি সুন্দর তালিকা আজকের এই পোস্টে পেয়ে যাবে। প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষাগুলিতে বিশেষ করেন WBPSC আয়োজিত পরীক্ষাগুলিতে মাঝে মধ্যেই কোনো একটি সেতুর নাম দিয়ে জানতে চাওয়া হয় সেটি কোন নদীতে বা কোন জেলায় অবস্থিত। তাই এই ধরণের সমস্ত তথ্যগুলি আমরা একসাথে তুলে ধরার চেষ্টা করলাম।

জয়ী সেতু

  • জয়ী সেতু হল পশ্চিমবঙ্গের দীর্ঘতম নদী সেতু। সেতুটির দৈর্ঘ্য ২.৭ কিলোমিটার।
  • সেতুটি কোচবিহার জেলার হলদিবাড়ি মেখলিগঞ্জকে যুক্ত করেছে।
  • সেতুটির উদ্বোধন হয়েছে ২০২১ সালে ১লা ফেব্রুয়ারি।
  • এই সেতুটি তিস্তা নদীর ওপরে নির্মিত।

ফারাক্কা বাঁধ

ফারাক্কা বাঁধ
  • ফারাক্কা বাঁধ পশ্চিমবঙ্গে ভাগীরথী নদীর ওপরে নির্মিত।
  • ১৯৬১ সালে এই বাঁধের নির্মাণকার্য শুরু হলেও শেষ হয় ১৯৭৫ সালে। ১৯৭৫ সালের ২১শে এপ্রিল থেকে এই বাঁধ চালু হয়
  • বাঁধটির দৈর্ঘ্য ২২৪০ মিটার। জয়ী সেতু নির্মাণের আগে এটিই ছিল পশ্চিমবঙ্গের দীর্ঘতম বাঁধ।
  • এই বাঁধটি নির্মাণের মূল লক্ষ্য ছিল হুগলি নদীর নাব্যতা বৃদ্ধি করা।
  • এই বাঁধের জলবন্টন নিয়ে ভারত ও বাংলাদেশের মধ্যে পূর্বে প্রচুর বিবাদ ছিল।
  • বাঁধটি পশ্চিমবঙ্গের মুর্শিদাবাদ জেলায় অবস্থিত।

রবীন্দ্র সেতু

  • হুগলি নদীতে অবস্থিত এই নদী সেতুটি পশ্চিমবঙ্গের অন্যতম বিখ্যাত সেতু। পশ্চিমবঙ্গের কলকাতা হাওড়া শহরদুটির মধ্যে সংযোগরক্ষা করে এই সেতু।
  • এই সেতুটি পূর্বে হাওড়া ব্রিজ নামে পরিচিত ছিল।
  • ১৮৭৪ সালে এই সেতুর প্রথম সংস্করণের নির্মাণকার্য শুরু হয়। ১৯৪৫ সালে হাওড়া ব্রিজের উদ্বোধন করা হয়।
  • ১৯৬৫ সালের ১৪ই জুন সেতুটির নাম পরিবর্তন করে নতুন নাম রাখা হয় রবীন্দ্র সেতু
  • সেতুটির দৈর্ঘ্য ৭৫০ মিটার।

বিদ্যাসাগর সেতু

  • বিদ্যাসাগর সেতু বা দ্বিতীয় হুগলি সেতু ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যে হুগলি নদীর ওপর অবস্থিত একটি সেতু।
  • দৈর্ঘ্য ৮২২.৯৬ মিটার।
  • এটি ভারতের দীর্ঘতম ঝুলন্ত (কেবল-স্টেইড) সেতু এবং এশিয়ার দীর্ঘতম ঝুলন্ত সেতুগুলির মধ্যে একটি।
  • ১৯৯২ খ্রিষ্টাব্দের ১০ অক্টোবর সেতুটির উদ্বোধন করা হয়।
  • উনিশ শতকের বাঙালি শিক্ষাবিদ ও সমাজ সংস্কারক ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগরের নামানুসারে সেতুটির নামকরণ করা হয়েছে।

নিবেদিতা সেতু

  • নিবেদিতা সেতু হল কলকাতা শহরের কাছে অবস্থিত একটি কেবল-স্টেয়ড সেতু।
  • এটির আগেকার নাম ছিল দ্বিতীয় বিবেকানন্দ সেতু
  • সেতুটি বিবেকানন্দ সেতুর সমান্তরালে অবস্থিত।
  • সেতুটি বালি-দক্ষিণেশ্বর এর মধ্যে, কলকাতায় অবস্থিত।
  • সেতুটির নামকরণ করা হয়েছে স্বামী বিবেকানন্দের শিষ্যা ও সমাজকর্মী ভগিনী নিবেদিতার নাম অনুসারে
  • সেতুর নির্মাণকাজ শুরু হয় ২০০৪ সালের এপ্রিল মাসে।
  • ২০০৭ সালের জুলাই মাসে সেতুটি যান চলাচলের জন্য খুলে দেওয়া হয়
  • সেতুর দৈর্ঘ্য ৮৮০ মিটার

ঈশ্বরগুপ্ত সেতু

  • ঈশ্বর গুপ্ত সেতু হল হুগলি ও নদীয়া জেলার মাঝে হুগলি নদী এর উপর নির্মিত একটি সেতু।
  • এই সেতু ১.০৪ কিলোমিটার দীর্ঘ ।
  • এই সেতুর পশ্চিম প্রান্ত বাঁশবেড়িয়া শহরের সঙ্গে যুক্ত এবং পূর্ব প্রান্ত কল্যাণী শহরকে যুক্ত করেছে।
  • এই সেতুর দ্বারা নদীয়া জেলা ও উত্তর চব্বিশ পরগনা জেলার সঙ্গে বর্ধমান, হুগলি জেলা ও বীরভূম জেলা যুক্ত রয়েছে।
  • সেতুটি কল্যাণী এক্সপ্রেসওয়ে দ্বারা কলকাতা শহরের সঙ্গে যুক্ত। এই সেতু কল্যাণী এক্সপ্রেসওয়ের মাধ্যমে ৩৪ নং জাতীয় সড়ক-এর সঙ্গে ২ নং জাতীয় সড়ক কে যুক্ত করেছে।

ভুতনি সেতু

  • ভুতনি সেতু মালদা জেলায় ফুলাহার নদীর ওপরে অবস্থিত।
  • ২০১৯ সালে এই সেতুর নির্মাণ কার্য সম্পন্ন হয়।
  • এই সেতুর দৈর্ঘ্য প্রায় ১৭৯০ মিটার।

জঙ্গলকন্যা সেতু

  • জঙ্গলকন্যা সেতু ভসরাঘাট সেতু নামেও পরিচিত।
  • এটি ঝাড়গ্রাম জেলার নয়াগ্রাম-এ অবস্থিত একটি সেতু।
  • সেতুটি সুবর্ণরেখা নদীর উপর নির্মিত হয়েছে।
  • সেতুটি প্রায় ১.৪৭২ কিলোমিটার দীর্ঘ
  • এই সেতুটি নির্মাণের ফলে নয়াগ্রাম থেকে গোপীবল্লভপুর হয়ে খড়গপুর আসতে অনেক সময় সাশ্রয় হয়।
  • ২০১৬ সালে এই সেতুটির শুরু হয়।

করোনেশন ব্রিজ

করোনেশন ব্রিজ
  • এই ব্রিজটি সেবক রোডওয়ে ব্রিজ নামেও পরিচিত। স্থানীয় বাসিন্দারা এটিকে বাঘপুল ( Tiger Bridge ) বলেও অভিহিত করে থাকেন।
  • তিস্তা নদীর ওপরে নির্মিত এই ব্রিজটি পশ্চিমবঙ্গের দার্জিলিং ও কালিংপং জেলাদুটিকে যুক্ত করেছে।
  • এই সেতুটি জাতীয় সড়ক ১৭ এর একটি অংশ।
  • ১৯৩৭ সালে এই ব্রিজের নির্মাণ কার্য শুরু হয় এবং ১৯৪১ সালে সম্পন্ন হয়।

জুবিলি ব্রিজ

  • জুবিলী ব্রিজ পশ্চিমবঙ্গের প্রাচীনতম সেতুগুলির মধ্যে অন্যতম। এই সেতুটি একশো বছরের বেশি পুরোনো।
  • এই সেতুটি হুগলি নদীর ওপরে অবস্থিত।
  • এই সেতুটির নির্মাণকার্য শুরু হয় ১৮৮২ সালে এবং খোলা হয় ১৮৮৭ সালে।
  • এটি একটি রেলসেতু এবং বান্ডেল ও নৈহাটী স্টেশনের মধ্যে সংযোগ রাখা করেছে এই ব্রিজ।
  • এই সেতুটির হুগলি জেলার দিকে রয়েছে হুগলীঘাট স্টেশন এবং উত্তর ২৪ পরগনা জেলার দিকে রয়েছে গরিফা স্টেশন।
  • বহু বছর ব্যবহারের ফলে এই সেতুটি বর্তমানে দুর্বল হয়ে পড়েছে এবং এই সেতুর সমান্তরালে আরো একটি সেতু (সম্প্রীতি সেতু ) নির্মাণ করা হয়েছে।

জুবিলী সেতুর কথা উল্লেখ রয়েছে বিভূতিভূষণ বন্দোপাধ্যায়ের পথের পাঁচালি উপন্যাসে।

সম্প্রীতি ব্রিজ

  • জুবিলী ব্রিজের বিকল্প হিসেবে হুগলি নদীর ওপরে এই ব্রিজটি নির্মাণ করা হয়।
  • এই সেতুটি হুগলীঘাট ও গরিফা স্টেশনকে যুক্ত করেছে।
  • এই সেতুটির দৈর্ঘ্য প্রায় ৪১৫ মিটার।
  • ২০০৭ সালে এই সেতুর নির্মাণকার্য শুরু হয় এবং ২০১৬ সালের অগাস্ট মাসে এই সেতুটি চালু হয়।
  • এটি একটি রেল সেতু এবং এই সেতুর রক্ষনাবেক্ষন করে পূর্ব রেল।

মাতলা সেতু

  • দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলার ক্যানিং শহরে মাতলা নদীর ওপরে নির্মিত হয়েছে এই সেতু।
  • এই সেতুটির দৈর্ঘ্য প্রায় ৬৪৪ মিটার।
  • এই সেতুটি ঝাড়খালির সাথে সুন্দরবনের প্রবেশদ্বার ক্যানিংকে যুক্ত করেছে।
  • ২০১১ সালে এই সেতুর নির্মাণকার্য সম্পন্ন হয় এবং এই সেতুর উদ্বোধন করেন তৎকালীন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী বুদ্ধদেব ভট্রাচার্য মহাশয়।

পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন শহরের উপনাম

মাতঙ্গিনী সেতু

  • হলদি নদীর ওপরে নির্মিত হয়েছে মাতঙ্গিনী সেতু।
  • ১৯৬৬ সালে এই সেতুর নির্মাণকার্য শুরু হয়েছিল এবং সম্পন্ন হয়েছিল ১৯৮২ সালে।
  • ভারত ছাড়ো আন্দোলনের শহীদ মাতঙ্গিনী হাজরার নামে এই সেতুর নামকরণ করা হয়েছে।
  • এই সেতুটি নির্মাণের ফলে পশ্চিমবঙ্গের অন্যতম পর্যটনকেন্দ্র দিঘা যাওয়ার সড়কপথে হলদি নদী পার হওয়ার বাধা দূর হয়েছে।

দুর্গাপুর ব্যারেজ

  • পশ্চিমবর্ধমান জেলায় দুর্গাপুর শহরের নিকট দামোদর নদের ওপরে এই ব্যারেজ নির্মাণ করা হয়েছে।
  • এই ব্যাজেটি পরিচালনা করেন দামোদর ভ্যালি কর্পোরেশন।
  • ব্যারেজটির দৈর্ঘ্য ৬৯২ মিটার।
  • ১৯৫৩ সালে এই ব্যারেজটির নির্মাণকার্য শুরু হয় এবং নির্মাণকার্য সম্পন্ন হয় ১৯৫৫ সালে।
  • এই ব্যারেজ থেকে সেচ খাল খনন করা হয়েছে এবং এই সেচ খালগুলির দ্বারা বর্ধমান ও বাঁকুড়া জেলার কৃষি জমিতে সেচ করা হয়।

রামেন্দ্রসুন্দর ত্রিবেদী সেতু

  • মুর্শিদাবাদ জেলার বহরমপুর শহরে ভাগীরথী নদীর ওপরে নির্মিত হয়েছে এই সেতু।
  • ২৮০ মিটার দীর্ঘ এই সেতু উত্তর-পূর্ব রাজ্যগুলির সাথে যোগাযোগের অন্যতম মাধ্যম।
  • মুর্শিদাবাদে জন্মগ্রহণকারী আচার্য রামেন্দ্রসুন্দর ত্রিবেদীর নামে এই সেতুটি নামাঙ্কিত।

একনজরে এই সমস্ত সেতুগুলির সংক্ষিপ্ত বিবরণ

সেতুনদীঅবস্থান
জয়ী সেতুতিস্তাকোচবিহার
ফারাক্কা বাঁধভাগীরথীমুর্শিদাবাদ
রবীন্দ্র সেতুহুগলিহাওড়া-কলকাতা
বিদ্যাসাগর সেতুহুগলি হাওড়া-কলকাতা
নিবেদিতা সেতুহুগলি হাওড়া-কলকাতা
ঈশ্বরগুপ্ত সেতুহুগলিবাঁশবেড়িয়া-কল্যাণী
ভুতনি সেতুফুলাহারমালদহ
জঙ্গলকন্যা সেতুসুবর্ণরেখাঝাড়গ্রামের নয়াগ্রাম
করোনেশন ব্রিজতিস্তাদার্জিলিং-কালিংপং
জুবিলী ব্রিজহুগলিনৈহাটী-বান্ডেল
সম্প্রীতি সেতুহুগলিগরিফা-হুগলিঘাট
মাতলা সেতুমাতলাক্যানিং-বাসন্তী
মাতঙ্গিনী সেতুহলদিপূর্ব মেদিনীপুর
দুর্গাপুর ব্যারেজদামোদর নদপশ্চিম বর্ধমান
রামেন্দ্রসুন্দর ত্রিবেদী সেতুভাগীরথীমুর্শিদাবাদ (বহরমপুর )
পশ্চিমবঙ্গের সেতুসমূহের তালিকা

Download Section

  • File Name : পশ্চিমবঙ্গের সেতু সমূহ তালিকা
  • File Size : 2.7 MB
  • No. of Pages : 06
  • Format : PDF
  • Langauge : Bengali
  • Subject : West Bengal Geography

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
error: Alert: Content is protected !!