History NotesGeneral Knowledge Notes in Bengali

আইন অমান্য আন্দোলন – Civil Disobedience Movement

Civil Disobedience Movement

5/5 - (1 vote)

আইন অমান্য আন্দোলন :

আজ আমরা জেনে নেবো আইন অমান্য আন্দোলন (Civil Disobedience Movement ) সম্পর্কিত কিছু তথ্য। গান্ধীজির হাত ধরে হওয়া এই আন্দোলন খুব গুরুত্বপূর্ণ ছিল। অনেক ক্ষেত্রে ভারতে স্বাধীনতার পথ প্রশস্ত করার জন্য আইন অমান্য আন্দোলনকে কৃতিত্ব দেওয়া হয়। 

সূচনার ইতিহাস :

  • মহাত্মা গান্ধীর নেতৃত্বে আইন অমান্য আন্দোলন শুরু হয়েছিল। ১৯৩০ সালে স্বাধীনতা দিবস পালনের পর এটি শুরু হয়।
  • ১২ই মার্চ ১৯৩০এ গান্ধীজি সবরমতি আশ্রমের অন্যান্য ৭৮ জন সদস্যের সাথে ডান্ডির উদ্দেশ্যে পদযাত্রার জন্য আশ্রম ত্যাগ করেন ও ডান্ডি পদযাত্রা বা লবন সত্যাগ্রহের সূচনা করেন। 
  • ৬ই এপ্রিল ১৯৩০এ ডান্ডিতে পৌঁছানোর পর গান্ধীজি ব্রিটিশ সরকারের লবণ আইন ভেঙে দেন (লবন সত্যাগ্রহ)। এবং এর মাধ্যমে আইন অমান্য আন্দোলনের সূচনা হয়। 
  • ব্রিটিশ সরকার লবণের উপর এক চেটিয়া আধিপত্য বিস্তার করে। ফলে সমুদ্রের জল থেকে লবন তৈরী করে যে উপার্জন হতো তার উপরেও খাজনা (Tax) চাপিয়ে দেয় ব্রিটিশ সরকার। 
  • এই লবণ সত্যাগ্রহ সারা দেশে আইন অমান্য আন্দোলনকে ব্যাপক গ্রহণযোগ্যতার দিকে পরিচালিত করে। কারণ লবন ছিল ধনী, গরিব, সমস্ত শ্রেণীর প্রাত্যহিক জীবনযাপনের রসদ, ব্রিটিশ সরকার এতেও কর চাপিয়ে দেয়, এই বিষয়টি তুলে ধরে গান্ধীজি সমস্ত শ্রেণীর মানুষদের আন্দোলনের সাথে যুক্ত করতে সক্ষম হন। 
  • এই লবন সত্যাগ্রহের ঘটনাটি সরকারি নীতির প্রতি ভারতীয়দের রুষ্ট মনোভাবের বহিঃপ্রকাশ ঘটায়। এবং জনগণকে সরকারি নীতির বিরোধী করে তোলে। 

আন্দোলনের প্রভাব :

  • বিভিন্ন প্রদেশে বিভিন্ন কায়দায় আইন অমান্য আন্দোলন চলতে থাকে। বিদেশী পণ্য বয়কটের উপর বিশেষ জোর দেওয়া হয়েছিল।
  • পূর্ব ভারতে, চৌকিদারি কর প্রদান প্রত্যাখ্যান করা হয়েছিল। এই নো-ট্যাক্স (করহীন) প্রচার বিহারে খুব জনপ্রিয় হয়ে ওঠে।
  • বাংলায়, জে.এন. সেনগুপ্ত সরকার কর্তৃক নিষিদ্ধ বই প্রকাশ্যে পড়ে সরকারী আইন অমান্য করেছেন। 
  • বন আইন লঙ্ঘন মহারাষ্ট্রে একটি গণ চরিত্র গ্রহণ করেছে।
  • আন্দোলনটি উত্তরপ্রদেশ, উড়িষ্যায় বিরাট আকার ধারণ করেছিল। তামিলনাড়ু, অন্ধ্রপ্রদেশএও এর তীব্রতা কম ছিলোনা। 
  • গান্ধীজিকে অনুসরণ করে, তামিলনাড়ুর সি. রাজগোপালচারী ত্রিচিনোপলি থেকে ভেদারানিয়াম পর্যন্ত একই ধরনের পদযাত্রার নেতৃত্ব দেন। 
  • একই সময়ে কংগ্রেসের একজন বিশিষ্ট নেতা সরোজিনী নাইডু গুজরাটের দারাসানায় আন্দোলনের নেতৃত্ব দেন।
  • এই আইন অমান্য আন্দোলনের ব্যাপকতার ফলে পুলিশ লাঠিচার্জ করে যার ফলে ৩০০ জনেরও বেশি অন্দরলানকারী গুরুতর আহত হয়। 
  • ফলস্বরূপ, বিক্ষোভ, ধর্মঘট, বিদেশী পণ্য বয়কট এবং পরে কর দিতে অস্বীকার করা হয়েছিল।
  • এ আন্দোলনে শহরের মানুষ,নারীসহ লাখ লাখ নিম্নবর্ণের মানুষও অংশগ্রহণ করেন।

ব্রিটিশ সরকারের প্রতিক্রিয়া :

  • সরকার প্রথম প্রথম কঠোর নিপীড়নমূলক পদক্ষেপ গ্রহণ করেছিল। আন্দোলনে প্রায় ৬০ হাজার মানুষকে আটক করে হয়ে ছিল। 
  • হিজলী ডিটেনশন ক্যাম্পে দুই বন্দিকে হত্যা করেছিল পুলিশ।
  • বুন্দুরে, টি.এন. নাইডুকে পিটিয়ে অজ্ঞান করা হয়। 
  • কংগ্রেসকে বেআইনি সংগঠন ঘোষণা করা হয়।
  • শাস্তিমূলক কর আরোপ করা হয়েছিল।
  • গান্ধীজি এবং আরউইন একটি চুক্তিতে পৌঁছেছিলেন (গান্ধী-আরউইন চুক্তি, ৫ই মার্চ ১৯৩১) যেখানে সরকার সেসমস্ত রাজনৈতিক বন্দীদের মুক্তি দিতে সম্মত হয়েছিল যাদের বিরুদ্ধে কোনো সহিংসতার অভিযোগ নেই এবং পরিবর্তে কংগ্রেসের আইন অমান্য আন্দোলন স্থগিত করার শর্ত রাখা হয়েছিল।
  • গান্ধী-আরউইন চুক্তির মাধ্যমে আইন অমান্য আন্দোলন শেষ হলেও গান্ধীজি ১৯৩২ সালে দ্বিতীয় গোলটেবিলে বৈঠকের আলোচনা ব্যর্থ হবার পর আবার তা চালু করেন। 
  • দ্বিতীয় গোলটেবিল বৈঠক থেকে ভারতে ফিরে গান্ধীজি দেখতে পেলেন যে ব্রিটিশদের দ্বারা নিপীড়নের একটি নতুন চক্র অনুসরণ করা হচ্ছে, কংগ্রেসকে অবৈধ ঘোষণা করা হয়েছে, আবদুল গাফ্ফার খান এবং জওহরলাল নেহেরুকে জেলে পাঠানো হয়েছে এবং মিটিং, বিক্ষোভ প্রতিরোধ করার জন্য বিভিন্ন আইন আরোপ করা হয়েছে।
  • ব্রিটিশদের এমন নির্মম দমন-পীড়ন দেখে গান্ধীজী আইন অমান্য আন্দোলন পুনরায় চালু করেন।
  • অবশেষে ১৯৩৪ সালের ৭ই এপ্রিল গান্ধীজি সম্পূর্ণরূপে আইন অমান্য আন্দোলন তুলে নেন। 

আন্দোলনের গুরুত্ব :

আইন অমান্য আন্দোলন ব্যর্থ হলেও দেশের স্বাধীনতা সংগ্রামের সূচনা পর্বের আন্দোলন হিসাবে এর গুরুত্ব ছিল অপরিসীম।

  • আইন অমান্য আন্দোলনের প্রভাব দূর-দূরান্তে ছড়িয়ে পড়ে।
  • এটি ব্রিটিশ সরকারের প্রতি জনগণের অবিশ্বাস তৈরি করে এবং স্বাধীনতা সংগ্রামের ভিত্তি স্থাপন করে। 
  • এই আন্দোলন বিশ্বব্যাপী সাড়া পেয়েছিল।
  • ব্রিটেন থেকে পণ্য আমদানি অনেক কমে গেছিল।
  • ধনী, দারিদ্র, উচ্চ-নিম্ন বার্ন নির্বিশেষে বহু জনগণের অংশগ্রহণ দেখা যায় এই আন্দোলনে। 

আরও দেখে নাও :

ভারত ছাড়ো আন্দোলন – Quit India Movement

ভারতের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ বিদ্রোহ / আন্দোলন / বৈপ্লবিক ঘটনাসমূহ ও নেতৃবৃন্দ

To check our latest Posts - Click Here

Telegram
Back to top button
error: Alert: Content is protected !!
১০০টি বিজ্ঞানের প্রশ্ন ও উত্তর UNSC দ্বারা বৈশ্বিক সন্ত্রাসী হিসেবে তালিকাভুক্ত হলেন আবদুল রহমান মক্কি বন্দে ভারত এক্সপ্রেস সম্পর্কিত ১০টি তথ্য Nobel 2022 Winner List in Bengali Current Affairs in Bangla – 26th October 2022